ভর্তি বিজ্ঞপ্তি

এএফএমসি ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২১

ভর্তির আবেদনের বিস্তারিত নির্দেশাবলী
১। বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী কর্তৃক পরিচালিত সরকারি চিকিৎসা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আর্মড ফোর্সেস মেডিকেল কলেজ (AFMC)-এর এএমসি ক্যাডেট (যারা বাধ্যতামূলকভাবে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে যােগদান করবে) ও এএফএমসি ক্যাডেট ক্যাটাগরিতে এবং বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট কর্তৃক পরিচালিত বেসরকারি ০৫ (পাঁচ)টি আর্মি মেডিকেল কলেজে অভিন্ন প্রক্রিয়ায় ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে ১ম বর্ষ এমবিবিএস কোর্সে ছাত্র/ছাত্রী ভর্তি করা হবে।

ভর্তি পরীক্ষার আবেদন অন-লাইনে গ্রহণ শুরুর তারিখ ও সময়ঃ ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১ তারিখ ১০০০ ঘটিকা।
ভর্তি পরীক্ষার আবেদন অন-লাইনে গ্রহণ শেষের তারিখ ও সময়ঃ ১২ মার্চ ২০২১ তারিখ ১৬০০ ঘটিকা।
আবেদনপত্র ফিঃ ১,০০০/- (এক হাজার টাকা) অফেরতযােগ্য।
লিখিত ভর্তি পরীক্ষাঃ ০৯ এপ্রিল ২০২১ তারিখ শুক্রবার সকাল ১০০০ ঘটিকায়।

২০২০-২০২১ শিক্ষা বর্ষে এমবিবিএস কোর্সে ভর্তির জন্য বাংলাদেশ মেডিকেল এন্ড ডেন্টাল কাউন্সিল কর্তৃক প্রণীত ভর্তি নীতিমালা অনুযায়ী অনলাইনে নির্ধারিত ছকে এবং নিম্নলিখিত শর্তাধীনে এমবিবিএস কোর্সে ভর্তিচ্ছু ছাত্র/ছাত্রীদের কাছ থেকে দরখাস্ত আহবান করা হচ্ছেঃ

ক।
শিক্ষাগত যােগ্যতাঃ
(১) এএফএমসি-এর এএমসি ক্যাডেট ক্যাটাগরিঃ এসএসসি/সমমান পরীক্ষা ২০১৭/২০১৮ এবং এইচএসসি/সমমান পরীক্ষা ২০১৯/২০২০ সনে বিজ্ঞান বিভাগে পাশ করা ছাত্র/ছাত্রীদেরকে মােট জিপিএ ১০.০০ প্রাপ্ত হতে হবে।
(২) এএফএমসি-এর এএফএমসি ক্যাডেট ক্যাটাগরি ও অন্যান্য ৫টি আর্মি মেডিকেল কলেজের ক্যাডেটঃ এসএসসি/সমমান পরীক্ষা ২০১৭/২০১৮ এবং এইচএসসি/সমমান পরীক্ষা ২০১৯/২০২০ সনে বিজ্ঞান বিভাগে পাশ করা ছাত্র/ছাত্রীদের ন্যূনতম মােট জিপিএ ৯.০০ থাকতে হবে। শুধুমাত্র উপজাতীয় কোট ভূিক্ত আসনের প্রার্থীর ক্ষেত্রে প্রাপ্ত জিপিএ এর যােগফল ন্যুনতম ৮.০০ হতে হবে। তবে কোন অবস্থাতেই উপজাতীয় প্রার্থীর এসএসসি/সমমান অথবা এইচএসসি/সমমান পরীক্ষায় কোন একটিতে জিপিএ ৩.৫০ এর নিচে গ্রহণযােগ্য হবে না।
(৩) সকলের ক্ষেত্রে এইচএসসি/সমমান পরীক্ষায় জীববিজ্ঞানে (Biology) ন্যূনতম জিপিএ ৩.৫০ হতে হবে।
(৪) ২০১৭ সনের পূর্বে এসএসসি/সমমান পরীক্ষায় পাশ করা প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবে না।

খ। শারীরিক যােগ্যতাঃ প্রার্থীকে অবশ্যই নিম্নলিখিত শারীরিক যােগ্যতা সম্পন্ন হতে হবেঃ (১) এএফএমসি-এর এএমসি ক্যাডেট ক্যাটাগরিঃ পুরুষ।

পুরুষ মহিলা
উচ্চতা (ন্যূনতম) ১.৬৩ মি. (৫ ফুট ৪ ইঞ্চি) ১.৫৭ মি. (৫ ফুট ২ ইঞ্চি)
ওজন (ন্যূনতম) ৪৫.৪৫ কেজি (১০০ পাউন্ড) ৪০.৯০ কেজি (৯০ পাউন্ড)
বুকের মাপ (ন্যূনতম) স্বাভাবিক-৭৬ সে.মি. (৩০ ইঞ্চি)

সম্প্রসারিত- ৮১ সে. মি. (৩২ ইঞ্চি)

স্বাভাবিক-৭১ সে. মি. (২৮ ইঞ্চি)

সম্প্রসারিত- ৭৬ সে. মি. (৩০ ইঞ্চি)

উচ্চতা ও বয়স অনুসারে সশস্ত্র বাহিনীর জন্য নির্ধারিত স্কেলের অতিরিক্ত ওজন হলে অযোগ্য বিবেচিত হবে।

  • দৃষ্টি শক্তি: প্রতিটি চোখের দৃষ্টিক্ষীনতা ও দূরদৃষ্টি ২.৫ ডাইঅপ্টার এর বেশি এবং বিষমদৃষ্টি ১.০ ডাইঅপ্টার এর বেশি হলে সেক্ষেত্রে গ্রহণযােগ্য হবে না। Colour Blindness গ্রহণযােগ্য হবে না। 
  • শ্রবণ শক্তি: গ্রহণযােগ্য সীমার মধ্যে থাকতে হবে।

গ।
ভর্তির শর্তাবলীঃ (১) এএফএমসি-এর এএমসি ক্যাডেটঃ
(ক) প্রার্থীদেরকে বাংলাদেশের স্থায়ী নাগরিক এবং অবিবাহিত হতে হবে।
(খ) ০১ জুলাই ২০২০ তারিখে বয়স সর্বোচ্চ ২০ বৎসরের মধ্যে হতে হবে।
(গ) লিখিত ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ সকল প্রার্থীদের মধ্য হতে লিখিত ভর্তি পরীক্ষা এবং এসএসসি/সমমান ও এইচএসসি/সমমান পরীক্ষায় অর্জিত ফলাফলের ভিত্তিতে যােগ্য প্রার্থীদেরকে মেধা অনুযায়ী আইএসএসবি’র সম্মুখীন হতে হবে।
(ঘ) আইএসএসবি উত্তীর্ণ প্রার্থীদের চূড়ান্ত শারীরিক যােগ্যতা নিরূপণ পূর্বক মেধা ও কোটার ভিত্তিতে ও সকল মূল নথি-পত্র নিরীক্ষণ পূর্বক এএমসি ক্যাডেট হিসেবে কলেজে ভর্তি করা হবে।
(ঙ) ভর্তি ফি ও টিউশন ফি মওকুফ থাকবে। তবে তাদের কশন মানি (ফেরতযােগ্য), আউটফিট, মেসিং, লন্ড্রি চার্জ, লাইব্রেরি ফি, কলেজ ম্যাগাজিন ফি, গেমস্ এন্ড স্পাের্টস ফি এবং অন্যান্য চার্জ প্রদান করতে হবে।
(চ) এমবিবিএস কোর্সে অধ্যয়নকালীন এবং ইন্টার্ণশীপ প্রশিক্ষণ সমাপনের পর সেনাবাহিনীর প্রয়ােজন সাপেক্ষে নির্বাচনী প্রক্রিয়ার কার্যাদি সম্পাদনের পর আর্মি মেডিকেল কোরে যােগদান করতে বাধ্য থাকবে।
(ছ) ভর্তির সময় সকল ছাত্র/ছাত্রী ও অভিভাবকগণকে কলেজ কর্তৃপক্ষের সাথে চুক্তিবদ্ধ হতে হবে। এমবিবিএস কোর্সে অধ্যয়নকালীন বা ইন্টার্ণশীপ প্রশিক্ষণের সময় স্বেচ্ছায় কলেজ ত্যাগে ইচ্ছুক হলে অথবা শৃংখলা ভঙ্গের কারনে তাকে কলেজ হতে প্রত্যাহার করা হলে অথবা ইন্টার্ণশীপ শেষ করে সেনাবাহিনীর প্রয়ােজন সাপেক্ষে আর্মি মেডিকেল কোরে যােগদানে অনিচ্ছুক হলে সংশ্লিষ্ট ক্যাডেটকে নির্ধারিত ক্ষতিপূরণ প্রদান করতে হবে।

এএফএমসি-এর এএফএমসি ক্যাডেট ক্যাটাগরি ও অন্যান্য ৫টি আর্মি মেডিকেল কলেজের ক্যাডেটঃ
(ক) প্রার্থীদেরকে বাংলাদেশের স্থায়ী নাগরিক এবং অবিবাহিত হতে হবে।
(খ) ০১ জুলাই ২০২০ তারিখে বয়স সর্বোচ্চ ২০ বৎসরের মধ্যে হতে হবে।
(গ) লিখিত ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ সকল প্রার্থীদের মধ্য হতে লিখিত ভর্তি পরীক্ষা এবং এসএসসি/সমমান ও এইচএসসি/সমমান পরীক্ষায় অর্জিত ফলাফলের ভিত্তিতে যােগ্য প্রার্থীদের মেধা অনুযায়ী স্বাস্থ্য পরীক্ষা নিরূপণ ও সকল মূল নথি-পত্র নিরীক্ষণ পূর্বক ক্যাডেট হিসাবে নির্বাচন করা হবে।
(ঘ) নির্বাচিত প্রার্থীদেরকে আর্মড ফোর্সেস মেডিকেল কলেজ এবং আর্মি মেডিকেল কলেজের প্রচলিত নিয়ম অনুযায়ী নির্ধারিত ভর্তি ফি, টিউশন ফি, কশন মানি (ফেরতযােগ্য), আউটফিট, মেসিং, লন্ড্রি চার্জ, লাইব্রেরি ফি, কলেজ ম্যাগাজিন ফি, গেমস্ এন্ড স্পাের্টস ফি এবং অন্যান্য চার্জ প্রদান করতে হবে (প্রসপেক্টাসে বিস্তারিত উল্লেখিত)।
(ঙ) ভর্তির সময় সকল ছাত্র/ছাত্রী ও অভিভাবকগণকে কলেজ কর্তৃপক্ষের সাথে চুক্তিবদ্ধ হতে হবে। এমবিবিএস কোর্সে অধ্যয়নকালীন স্বেচ্ছায় কলেজ ত্যাগে ইচ্ছুক হলে অথবা শৃংখলা ভঙ্গের কারনে তাকে কলেজ হতে প্রত্যাহার করা হলে সংশ্লিষ্ট ক্যাডেটকে নির্ধারিত ক্ষতিপূরণ প্রদান করতে হবে।

আবেদনের পদ্ধতি:
ক। ভর্তির আবেদনপত্র অনলাইনে ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১ (১০০০ ঘটিকা) হতে ১২ মার্চ ২০২১ (১৬০০ ঘটিকা) তারিখ পর্যন্ত পাওয়া যাবে। আবেদনপত্র প্রাপ্তির ওয়েব ঠিকানা http://afmc.teletalk.com.bd.
খ। ফর্ম পূরণের প্রক্রিয়াঃ

(১) ইন্টারনেটে ওয়েব ঠিকানায় প্রথম ধাপে জাতীয় কারিকুলাম (এসএসসি/সমমান ও এইচএসসি/সমমান) এর জন্য ও জিসিই (ও/এ/উভয় লেভেল) এর জন্য আলাদা পথ নির্দেশ করা আছে।
(২) জাতীয় কারিকুলামে পাশ করা প্রার্থীগণের জন্য দ্বিতীয় ধাপে এসএসসি ও এইচএসসি রােল নম্বর, রেজিস্ট্রেশন নং বাের্ড ও সন টাইপ করে সাবমিট-এ ক্লিক করলে আবেদন পত্র কম্পিউটার স্ক্রিনে আসবে। জিসিই ও/এ লেভেল-এ পাশ করা প্রার্থীগণকে Director, Medical Education, DGHS এর কাছ থেকে Equivalence Certificate ও Code সংগ্রহ করতে হবে এবং নিজ মােবাইল নম্বর ও কোড নং টাইপ করে সাবমিট করলে আবেদন পত্র কম্পিউটার স্ক্রিনে আসবে।
(৩) আবেদন পত্র পূরণের জন্য মেডিকেল কলেজ পছন্দের ক্ষেত্রে আর্মড ফোর্সেস মেডিকেল কলেজের দুইটি ক্যাটাগরি (এএমসি ও এএফএমসি ক্যাডেট) হতে যে কোন একটি এবং অবশিষ্ট আর্মি মেডিকেল কলেজগুলাের সবগুলােই পছন্দ করা যাবে। অর্থাৎ একজন প্রার্থী সর্বোচ্চ ৬টি মেডিকেল কলেজ পছন্দ করতে পারবেন।

(৪) আবেদনপত্র পূরণের জন্য টাইপ ও অপসন নির্বাচন ছাড়া নিম্নলিখিত দুইটি নথি সংযুক্ত করতে হবে।
ছবি: সদ্য তােলা (৩০০/৩০০ পিক্সেল যা ১০০ কিলােবাইটের মধ্যে এবং jpg/jpeg ফরম্যাটের হতে হবে)।
স্বাক্ষর: ৩০০/৮০ পিক্সেল যা ৬০ কিলােবাইটের মধ্যে এবং jpg/jpeg ফরম্যাটের হতে হবে।

(৫) আবেদনপত্র পূরণ সঠিক ভাবে সম্পন্ন হলে কম্পিউটার স্ক্রিনে প্রার্থীর পূরণকৃত আবেদনের নমুনা আসবে (Student’s copy) যার প্রিন্ট নেওয়া ও পিডিএফ ফাইল সংরক্ষন করা যাবে। আবেদনপত্র পূরণ করার পর প্রাপ্ত User ID পরবর্তীতে টাকা প্রদান ও কেন্দ্র নির্বাচনে প্রয়ােজন হবে বিধায় সংরক্ষণ করতে হবে।

(৬) প্রার্থীকে আবেদনপত্র পূরণের ৪৮ ঘন্টার মধ্যে নির্দেশিত পদ্ধতিতে ভর্তি প্রক্রিয়ার আনুষঙ্গিক খরচ বাবদ ১,০০০/- (এক হাজার টাকা) মাত্র (অফেরতযােগ্য) টেলিটক মােবাইল সংযােগের মাধ্যমে পাঠাতে হবে। অন্যথায় আবেদন বাতিল হয়ে যাবে। তবে প্রার্থী নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে পুনরায় আবেদন করতে পারবেন। প্রার্থীকে টাকা প্রদান প্রক্রিয়া ও ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহনের পছন্দের সেনানিবাস SMS এর মাধ্যমে সম্পন্ন করতে হবে। সেনানিবাসের কোডগুলি নিম্নরূপঃ

কোড সেনানিবাস কেন্দ্র সর্বোচ্চ পরীক্ষার্থী ধারণ ক্ষমতা
১১ ঢাকা সেনানিবাস ২৪,০০০ আসন
১২ চট্টগ্রাম সেনানিবাস ৭,০০০ আসন
১৩ কুমিল্লা সেনানিবাস ৫,০০০ আসন
১৪ বগুড়া সেনানিবাস ৫,৫০০ আসন
১৫ রংপুর সেনানিবাস ১০,০০০ আসন
১৬ যশোর সেনানিবাস ৫,০০০ আসন

কেন্দ্র নির্বাচন ও ফি প্রদান প্রক্রিয়া:
(১) পরীক্ষা ফি ১,০০০/- (এক হাজার মাত্র) টাকা Prepaid টেলিটকের মাধ্যমে জমা দিতে হবে। অন্যান্য সকল কাজ অন্য যে কোন মােবাইল থেকে করা যাবে ।
(২) পরীক্ষা ফি জমা দেওয়ার পদ্ধতি: টেলিটকের Prepaid মােবাইল ফোনের Message অপসনে গিয়ে AFMC লিখে, স্পেস দিয়ে User ID লিখে 16222 নম্বরে SMS প্রেরণ করতে হবে। উদাহরণ ? AFMC<Space>ABCDEF (এখানে ABCDEF ফরম পূরণ করার পর পাওয়া User ID)। ফিরতি SMSএ একটি PIN প্রার্থীকে জানানাে হবে এবং ফিস হিসাবে ১০০০/= কেটে রাখার তথ্য দিয়ে সম্মতি চাওয়া হবে।

সম্মতি দেয়ার জন্য নিম্নলিখিত ভাবে 16222 নম্বরে SMS প্রেরণ করতে হবেঃ
Message অপসনে গিয়ে AFMC লিখে স্পেস দিয়ে YES লিখে স্পেস দিয়ে PIN লিখে স্পেস দিয়ে পছন্দের ক্রমানুসারে দুইটি সেন্টার কোড কমা (,) দিয়ে লিখে 16222 নম্বরে SMS প্রেরণ করতে হবে।
উদাহরনঃ AFMC<Space>YES<Space>PIN<Space>11,12 লিখে 16222 নম্বরে SMS প্রেরণ করতে হবে। এখানে ১১ ও ১২ যথাক্রমে ঢাকা সেনানিবাস ও চট্টগ্রাম সেনানিবাস পরীক্ষা কেন্দ্র। এই SMS পাবার পর আবেদনপত্র চূড়ান্তভাবে গৃহীত হবে।

বিশেষ তথ্য:
ক। টাকা সঠিক ভাবে জমা হলে আবেদনপত্রে দেওয়া মােবাইল নম্বরে SMS-এ অবগত করা হবে। টাকা পাঠানাের শেষ সময় ১৪ মার্চ ২০২১ তারিখ ১৬০০ ঘটিকা পর্যন্ত।

খ। সকল বৈধ আবেদনকারীকে লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযােগ প্রদান করা হবে। তবে আবেদন গ্রহণের ঘােষিত শেষ দিনের পূর্বে যে কোন কেন্দ্রের সর্বোচ্চ ধারণ ক্ষমতা পূর্ণ হলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে সেই কেন্দ্রের আবেদন গ্রহণ বন্ধ হয়ে যাবে, সে ক্ষেত্রে প্রার্থীকে তার পরবর্তী পছন্দের কেন্দ্রে পরীক্ষা দিতে হবে।

গ। লিখিত ভর্তি পরীক্ষার জন্য যােগ্য প্রার্থীগণ User ID ও PIN ব্যবহার করে ০১ এপ্রিল ২০২১ তারিখ ১০০০ ঘটিকা হতে ০৮ এপ্রিল ২০২১ তারিখ ১৪০০ ঘটিকা পর্যন্ত একই ওয়েব সাইট (http://afmc.teletalk.com.bd) হতে প্রবেশ পত্র ডাউনলােড করতে পারবেন। যেখানে প্রার্থীর রােল নং, পরীক্ষার তারিখ, সময়, কেন্দ্রের নাম ও প্রশ্নের মাধ্যম (বাংলা/ইংরেজি) উল্লেখ থাকবে। প্রবেশপত্রটি পরবর্তীতে প্রার্থীর পরিচয় পত্র হিসেবে গ্রহণযােগ্য হবে। প্রবেশপত্র হারানাে গেলে পুনরায় তা একই ওয়েব সাইট থেকে ডাউনলােড করা যাবে। পরীক্ষার হলে অবশ্যই প্রবেশপত্র নিয়ে আসতে হবে।

ঘ। আবেদনপত্র পূরণে কোন ভুল হলে প্রার্থী পুনরায় আবেদনপত্র পূরণ করতে পারবেন। সে ক্ষেত্রে প্রার্থীকে পুনরায় আবেদপত্র ফি প্রদান করতে হবে (ইতিমধ্যে ফি জমা দিয়ে থাকলে) এবং পূর্বের আবেদনপত্রটি বাতিলের জন্য কমান্ড্যান্ট, এএফএমসি বরাবর আবেদন করতে হবে (ই-মেইলের মাধ্যমেও আবেদন করা যাবে)।

ঙ। বাংলাদেশি নাগরিক যারা বিদেশি শিক্ষা (O-Level/A-Level) কার্যক্রমে এসএসসি/এইচএসসি এর সমমান পরীক্ষায় উত্তীর্ণ তাদের মার্কসীটসমূহ বাংলাদেশে প্রচলিত জিপিএতে রূপান্তর করে Equivalence Certificate সংগ্রহ করার পর অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন। সে ক্ষেত্রে তাদেরকে পরিচালক, চিকিৎসা শিক্ষা, স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তর, মহাখালী, ঢাক বরাবরে ২,০০০/- (দুই হাজার) টাকার ব্যাংক ড্রাফট/পে-অর্ডারসহ আবেদন করে Equivalence Certificate সংগ্রহ করার সময় ID নম্বর নিতে হবে। Equivalence Certificate সংগ্রহ করার জন্য এসএসসি/এইচএসসি এর সমমান পরীক্ষার মূল মার্কসীট ও সনদপত্র (প্রযােজ্য ক্ষেত্রে) এবং মার্কসীট ও সনদপত্রসমূহের সত্যায়িত কপি সাথে আনতে হবে। এছাড়াও বাংলাদেশের নাগরিক যারা বিদেশ থেকে এসএসসি এবং এইচএসসি এর সমমান পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন, তাদের মার্কসীটসমূহ সংশ্লিষ্ট দেশের বাংলাদেশি দূতাবাস, বাংলাদেশে অবস্থিত সংশ্লিষ্ট দেশের দূতাবাস এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, ঢাকা, বাংলাদেশ কর্তৃক সত্যায়িত করাতে হবে, অন্যথায় DGHS (Medical Education) কর্তৃক Equivalence Certificate দেয়া হবে না।

চ। কলেজসমূহের প্রসপেক্টাস, FAQ ও বিজ্ঞপ্তি ইত্যাদি তথ্য ওয়েব ঠিকানায় http://afmc.teletalk.com.bd ও www.afmc.edu.bd-এ পিডিএফ হিসেবে দেওয়া আছে। আবেদনপত্র গ্রহণকালীন সময় ভর্তি সংক্রান্ত সকল তথ্যের জন্য আর্মড ফোর্সেস মেডিকেল কলেজ, ঢাকা সেনানিবাসে অফিস চলাকালীন সময় (রবিবার হতে বৃহস্পতিবার, সরকারী ছুটির দিন ব্যতীত, সকাল ০৯০০ ঘটিকা ১৪০০ ঘটিকা পর্যন্ত) একটি তথ্য কেন্দ্র খােলা থাকবে এবং ০১৮৮১৭৭৬৭৭৬ মােবাইল নম্বর ও ই-মেইল (afmc.amc.admission@gmail.com)-এর মাধ্যমে ভর্তি সংক্রান্ত যােগাযােগ করা যাবে।

লিখিত পরীক্ষা:
ক। ভর্তির লিখিত পরীক্ষা ঢাকা সেনানিবাস সহ মােট ৬টি সেনানিবাসে আগামী ০৯ এপ্রিল ২০২১ তারিখ শুক্রবার সকাল ১০০০ হতে ১১০০ ঘটিকায় অনুষ্ঠিত হবে। প্রার্থীকে প্রবেশ পত্রে উল্লেখিত সেনানিবাসে নির্দিষ্ট কেন্দ্রে (যা তিনি আবেদনের সময় পছন্দ করেছেন) অনুষ্ঠিতব্য পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে।

খ। লিখিত পরীক্ষা (MCQ পদ্ধতি) = ১০০ নম্বর। বিষয়ভিত্তিক নম্বর বিভাজন: পদার্থবিদ্যা = ৩০, রসায়নবিদ্যা = ৩০, জীববিদ্যা = ৩০, ইংরেজী = ০৫, সাধারন জ্ঞান (বাংলাদেশের ইতিহাস ও সংস্কৃতি) = ০৫। সিলেবাস ও এইচএসসি/সমমান।

গ। লিখিত পরীক্ষায় প্রতিটি ভুল উত্তর প্রদানের জন্য ০.২৫ নম্বর কর্তন করা হবে এবং লিখিত পরীক্ষায় ১০০ নম্বরের মধ্যে নূন্যতম ৪০ নম্বর পেতে হবে। লিখিত পরীক্ষায় ৪০ নম্বরের কম নম্বর প্রাপ্তরা অকৃতকার্য বলে গণ্য হবেন। শুধুমাত্র কৃতকার্য পরীক্ষার্থীদের মেধাতালিকায় অন্তর্ভূক্ত করা হবে।

প্রার্থী মূল্যায়ন পদ্ধতি ক। এসএসসি/সমমান এবং এইচএসসি/সমমান এর জিপিএ এবং ভর্তি পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে প্রার্থীদের নিম্নলিখিত ভাবে মূল্যায়ন করা হবে ?

এসএসসি/সমমান পরীক্ষায় প্রাপ্ত জিপিএ-এর ১৫ গুন = ৭৫ নম্বর (সর্বোচ্চ) । এইচএসসি/সমমান পরীক্ষায় প্রাপ্ত জিপিএ-এর ২৫ গুন = ১২৫ নম্বর (সর্বোচ্চ) | 

MCQ পদ্ধতিতে লিখিত পরীক্ষা = ১০০ নম্বর

মােট ৩০০ নম্বর

খ। ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে এমবিবিএস/বিডিএস ভর্তি পরীক্ষায় পূর্ববর্তী বছরের এইচএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ পরীক্ষার্থীদের সর্বমােট (Aggregated) নম্বর থেকে ০৫ (পাঁচ) নম্বর কর্তন করে এবং পূর্ববর্তী বৎসরের সরকারি মেডিকেল বা ডেন্টাল কলেজ/ইউনিট এ ভর্তিকৃত ছাত্র/ছাত্রীদের ক্ষেত্রে ৭.৫ (সাত দশমিক পাঁচ) নম্বর কর্তন করে মেধা তালিকায় অন্তর্ভূক্ত করা হবে।

৭। লিখিত পরীক্ষার ফলাফলঃ লিখিত পরীক্ষার ফলাফল http://afmc.teletalk.com.bd ও www.afmc.edu.bd ওয়েব সাইটে ও কলেজের নােটিশ বাের্ডে প্রকাশ করা হবে এবং ফর্মে দেওয়া প্রার্থীর মােবাইল নম্বরে SMS-এর মাধ্যমে অবগত করা হবে।
৮। আইএসএসবি (শুধুমাত্র এএফএমসি-এর এএমসি ক্যাডেট প্রার্থীগণের জন্য)ঃ লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়া সাপেক্ষে নির্দিষ্ট দিনে আইএসএসবি-এর সম্মুখীন হতে হবে।
৯। ভর্তি পরীক্ষার আবেদনপত্র প্রক্রিয়াকরণ, নিরীক্ষণ এবং ফলাফল চূড়ান্তকরণ কম্পিউটারের মাধ্যমে এবং উত্তরপত্র OMR/OCR মেশিনে মূল্যায়ন করা হবে ।
১০। ভর্তি সংক্রান্ত যে কোন বিষয়ে কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত বলে বিবেচিত হবে।

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *